সারাদেশ

ভোলায় মেঘনা নদীতে প্রকাশ্যে চলছে বাগদা ও গলদা চিংড়ির রেণু শিকার

  ভোলা প্রতিনিধি: ১৮ জুন ২০২৩ , ১২:২৮:৩৮ প্রিন্ট সংস্করণ

ভোলা প্রতিনিধি: ভোলার লালমোহনের মেঘনা নদীতে প্রকাশ্যে চলছে বাগদা ও গলদা চিংড়ির রেণু শিকার। এতে করে ধ্বংস হচ্ছে নদী ও সামুদ্রিক বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা। এক শ্রেণির অসাধু মৎস্যজীবী প্রকাশ্যে চিংড়ির রেণু শিকার করলেও এ নিয়ে নীরব স্থানীয় প্রশাসন। উপজেলার মেঘনা নদীর বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে নির্বিচারে শিকার করা হচ্ছে বাগদা ও গলদা চিংড়ির রেণু পোনা। এসব পোনা অতি ক্ষুদ্র হওয়ায় তা শিকারে যে জাল ব্যবহার করা হয় তাতে ধ্বংস হয় নদীর বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনাও। এ জন্য সরকারের পক্ষ থেকে ২০০০ সালের ২১ সেপ্টেম্বর উপকূলীয় এলাকায় চিংড়ির রেণু আহরণ নিষিদ্ধ করা হয়। তবে সে নিষেধাজ্ঞা না মেনে নদীতে প্রকাশ্যেই চলছে চিংড়ির রেণু শিকার। রেণু শিকারি মো: কামরুলের সঙ্গে আলোচনা করলে তিনি বলেন, গত দুই বছর যাবত খুচি জাল দিয়ে চিংড়ির রেণু শিকার করছেন। প্রতিদিন দুইশ’ রেণু ধরতে পারেন তিনি। পাঁচশ’ পিস হলেই প্রতি পিস এক টাকা মূল্যে বিক্রি করে দেন। এসব চিংড়ির রেণু খুলনা থেকে এসে ব্যবসায়ীরা সরাসরি তাদের থেকে কিনে নেন। ওই এলাকায় আরও অন্তত ৫০-৬০ জন এসব চিংড়ির রেণু শিকার করেন। তারা এসব মাছ শিকার করেই সংসার চালান বলে জানান চিংড়ির রেণু পোনা শিকারি কামরুল। এ বিষয়ে লালমোহন উপজেলা সামুদ্রিক মৎস্য কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ বলেন, দুটি নদীর অসংখ্য স্থানে এসব চিংড়ির রেণু শিকার করা হয়। আমাদের লোকবল সংকটের কারণে এক সঙ্গে সব স্থানে অভিযান পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে আমরা নিয়মিত অভিযান পরিচালনার চেষ্টা করছি।

আরও খবর

Sponsered content