সারাদেশ

ভোলায় মেয়ের বাড়ি থেকে দাওয়াত খেয়ে লাশ হয়ে ফিরলেন মা

  প্রতিনিধি ৩০ এপ্রিল ২০২৩ , ১২:৫৮:২৬ প্রিন্ট সংস্করণ

ভোলা প্রতিনিধি:

ভোলায় কয়লা বোঝাই ট্রাকের সঙ্গে অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও তিনজন। তাদের মধ্যে দু’জন ওই গৃহবধূর পুত্রবধূ ও নাতি এবং অপরজন অটোরিকশা চালক। দুর্ঘটনার পর পুলিশ ঘাতক ট্রাকটি জব্দ করতে পারলেও পালিয়ে গেছে চালক ও সহকারী।

শনিবার (২৯ এপ্রিল) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ভোলা-চরফ্যাশন আঞ্চলিক মহাসড়কের মোস্তফা কামাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। সদর থানার এসআই মো. ইমাম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

নিহত গৃহবধূ তফুরা বেগম (৪৪) সদর উপজেলা ধনিয়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের তাজল ইসলামের স্ত্রী ও ৪ সন্তানের জননী ছিলেন।

আহত খাদিজা বেগম ও শাওন ওই গৃহবধূর পুত্রবধূ ও নাতি হয়। চিকিৎসক তাদের অবস্থা গুরুতর দেখে তাদেরকে বরিশাল শেরে-বাংলা (শেবাচিম) হাসপাতালে পাঠিয়েছেন। আহত অটোরিকশা চালক মনির হোসেন ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিহত গৃহবধূর স্বজনরা জানান, পবিত্র ঈদুল ফিতরের দাওয়াতে ঈদের পরদিন দৌলতখান উপজেলার পৌর ৭ নম্বর ওয়ার্ডে তাঁর একমাত্র মেয়ের বাড়িতে যান তরুফা বেগম৷ সেখানে কয়েকদিন থাকার পর আজ বিকেলে তিনি ও তাঁর আহত পুত্রবধূ ও নাতি অটোরিকশা যোগে বাড়ি ফিরছিলেন। অটোরিকশাটি তাদেরকে নিয়ে মোস্তফা কামাল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গিয়ে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে যাওয়া কয়লা বোঝাই একটি ট্রাকের সঙ্গে রিকশাটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ওই গৃহবধূর মৃত্যু হয়।

ইসমাইল হোসেন নামে এক পথচারী জানান, রিকশাটির গতি ছিল বেশি। সামনের অপর একটি অটোরিকশা ওভার করতে গেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আয়েশা সিদ্দিকী ঢাকা মেইলকে জানান, ওই গৃহবধূর মস্তিষ্কে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। যাঁর কারনে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও আহত খাদিজা বেগমের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলেও জানান।

সদর থানার ওসি মো. শাহীন ফকির জানান, এ ঘটনায় ঘাতক ট্রাক চালক গাড়িটি রেখে পালিয়ে গেছে। ট্রাকটি পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। আহত অটোরিকশা চালক সদর হাসপাতালে ভর্তি। সে পুলিশের নজরদারিতে রয়েছে। নিহতের স্বজনরা বিনা ময়নাতদন্তে লাশ নিয়ে যেতে চাচ্ছে। এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

আরও খবর

Sponsered content