সারাদেশ

ভোলা-২ আসনের এমপিকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া ইউপি চেয়ারম্যান বরখাস্ত

  ভোলা প্রতিনিধি: ২৭ জুলাই ২০২৩ , ১:৫৬:৫৫ প্রিন্ট সংস্করণ

ভোলা প্রতিনিধি: ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার পক্ষিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন সরদারকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। বুধবার (২৬ জুলাই) স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের ইউপি-১ শাখার সিনিয়র সহকারী সচিব জেসমীন প্রধানের সই করা অফিস আদেশে বিষয়টি জানানো হয়। এমপিকে হত্যার হুমকির মামলায় বর্তমানে আলাউদ্দিন সরদার কারাগারে আছেন। তার বিরুদ্ধে ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল (এমপিকে) সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও কলে হত্যার হুমকির অভিযোগ ওঠে। স্থানীয় সরকার বিভাগের বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়, ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলার পক্ষিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন সরদার ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুলকে ভিডিও কলের মাধ্যমে হত্যার হুমকি দিলে গত ২৬ জুন ৬১১ স্মারকে ১০ কার্য দিবসের মধ্যে কারণ দর্শানোর নির্দেশ প্রধান করা হয়। কারণ দর্শানোর ১০ কার্যদিবস অতিক্রম হলেও উপস্থিত হয়ে জবাব প্রদান না করায়, স্থানীয় সরকার বিভাগ ২৬ জুলাই তারিখের ৭২৮ নং স্মারকের প্রজ্ঞাপনে, জনস্বার্থে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) নাজমুল হাসান জানান, এমপি আলী আজম মুকুলকে হত্যার হুমকির অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন সরদারকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ। উল্লেখ্য, গত ২ জুন দৌলতখান উপজেলার নুর মিয়ার হাটে চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন সরদারের ছেলে রোহান সরদারের নেতৃত্বে চাঁদাবাজির চেষ্টা করে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ও ত্রাস সৃষ্টি করে। পরে ওই বাজার ব্যবসায়ীরা একত্রিত হয়ে রোহানকে আটকে রেখে দৌলতখান থানায় খবর দিলে পুলিশ তাকে আটক করে জেল হাজতে পাঠায়। এসময় আলাউদ্দিন সংসদ সদস্য  আলী আজম মুকুলকে অনুরোধ করেন তার ছেলে রোহানকে ছাড়িয়ে দিতে। কিন্তু সংসদ সদস্য অন্যায়কে প্রশ্রয় না দিয়ে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে পুলিশের কার্যক্রমে কোন হস্তক্ষেপ করেননি। এতে আলাউদ্দিন সরদার ক্ষিপ্ত হয়ে উল্লিখিত ভিডিও বার্তায় আলী আজম মুকুলকে হত্যার হুমকি দেন। একজন সংসদ সদস্যকে হুমকিতে এলাকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করলে, নেতাকর্মীরা আন্দোলনে মুখরিত হয়ে উঠেন। ওই ঘটনায় চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন সরদার এর বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে একাধিক মামলা হওয়ার পর পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠান। এরপরই স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় আলাউদ্দিন সরদারকে সাময়িক বহিষ্কার করেন।

আরও খবর

Sponsered content